Breaking

Wednesday, September 16, 2020

গাছের সাথে এ কেমন শত্রুতা


ডেস্ক:
জমি-জমা ও পারিবারিক বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের ৪২টি গাছ কেটে নিয়েছে এলাকার কতিপয় ব্যক্তি। ঘটনাটি ঘটেছে ফরিদপুর জেলার নগরকান্দা উপজেলার গহেরপুর গ্রামে। জানা গেছে, গহেরপুর গ্রামের মৃত সোনাউল্লাহ মোল্যার ছেলে মো. বকুল মোল্যা ফরিদপুর মসলা গবেষনা উপকেন্দ্রের মালি পদে কর্মরত আছেন। শখের বসে গ্রামের বাড়িতে নানান প্রজাতির ফলদ ও বনজ বৃক্ষের বাগান গড়ে তুলেছিলেন তিনি। তিল তিল করে গড়ে তোলা বাগানের গাছ গুলো শনিবার সন্ধ্যায় কেটে নিয়ে গেছে। ৪২টি গাছের মধ্যে ছিল মেহগুনী, লেবু ও সুপারী।

এঘটনায় মো. ছত্তার শেখ, মিরাজ শেখ, মুরাদ শেখ, ফরহাদ শেখ, আইয়ুব শেখ, বশার শেখ, মো. মুন্নু শেখ ওবাবলু শেখ কে আসামী করে নগরকান্দা থানায় একটি মামলা করেছে বাগান মালিক মো. বকুল মোল্যা।

ক্ষতিগ্রস্থ মো. বকুল ম্যোলা বলেন, ফরিদপুর মসলা গবেষনা উপকেন্দ্রে ছোট একটি চাকুরি করি। আমার বসত বাড়ির পৈত্রিক সম্পতিতে একটি বাগান গড়ে তুলি। বাগানটি সুন্দর হয়ে উঠেছে। বাগানের লেবু গাছে লেতু ধরেছে, সুপারী গাছেও শুপারি ধরেছে আর মেহগুনী গাছ গুলো সুন্দর ভাবে বেড়ে উঠেছে। কিন্তু আমার প্রতিবেশিরা জোর করে বাগানের ৪২টি গাছ কেটে নিয়ে গেছে। এতে আমার প্রায় কয়েক লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে।

এবিষয়ে নগরকান্দা থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ মোহাম্মদ সোহেল রানা বলেন, গাছ কাটার ঘটনায় নগরকান্দা থানার পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। ঘটনার সত্যতা পেয়েছি। দ্রুত আসামীদের গ্রেফতার করা হবে।

জমি-জমা ও পারিবারিক বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের ৪২টি গাছ কেটে নিয়েছে এলাকার কতিপয় ব্যক্তি। ঘটনাটি ঘটেছে ফরিদপুর জেলার নগরকান্দা উপজেলার গহেরপুর গ্রামে। জানা গেছে, গহেরপুর গ্রামের মৃত সোনাউল্লাহ মোল্যার ছেলে মো. বকুল মোল্যা ফরিদপুর মসলা গবেষনা উপকেন্দ্রের মালি পদে কর্মরত আছেন। শখের বসে গ্রামের বাড়িতে নানান প্রজাতির ফলদ ও বনজ বৃক্ষের বাগান গড়ে তুলেছিলেন তিনি। তিল তিল করে গড়ে তোলা বাগানের গাছ গুলো শনিবার সন্ধ্যায় কেটে নিয়ে গেছে। ৪২টি গাছের মধ্যে ছিল মেহগুনী, লেবু ও সুপারী।

এঘটনায় মো. ছত্তার শেখ, মিরাজ শেখ, মুরাদ শেখ, ফরহাদ শেখ, আইয়ুব শেখ, বশার শেখ, মো. মুন্নু শেখ ওবাবলু শেখ কে আসামী করে নগরকান্দা থানায় একটি মামলা করেছে বাগান মালিক মো. বকুল মোল্যা।

ক্ষতিগ্রস্থ মো. বকুল ম্যোলা বলেন, ফরিদপুর মসলা গবেষনা উপকেন্দ্রে ছোট একটি চাকুরি করি। আমার বসত বাড়ির পৈত্রিক সম্পতিতে একটি বাগান গড়ে তুলি। বাগানটি সুন্দর হয়ে উঠেছে। বাগানের লেবু গাছে লেতু ধরেছে, সুপারী গাছেও শুপারি ধরেছে আর মেহগুনী গাছ গুলো সুন্দর ভাবে বেড়ে উঠেছে। কিন্তু আমার প্রতিবেশিরা জোর করে বাগানের ৪২টি গাছ কেটে নিয়ে গেছে। এতে আমার প্রায় কয়েক লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে।

এবিষয়ে নগরকান্দা থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ মোহাম্মদ সোহেল রানা বলেন, গাছ কাটার ঘটনায় নগরকান্দা থানার পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। ঘটনার সত্যতা পেয়েছি। দ্রুত আসামীদের গ্রেফতার করা হবে।



No comments:

Post a Comment